আয়োজিত করা হোলো বঙ্গনারী বুটিক বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠান

 

 

অনুপ কুমার বর্মন খবর ২৪ কোলকাতা :  দক্ষিণ কলকাতায় অ্যাক্রোপলিস মলের কাছে ধীরে ধীরে গড়ে উঠছে বঙ্গনারী বুটি, সেই গঠনের উৎসের গল্প‌ই বললেন ব‌ঙ্গনারী বুটিকের মালকিন মৌমিতা সাহা।গত 10ই ফেব্রুয়ারি, 2018 সাল থেকে 1বছর ধরে একটু একটু করে গড়ে ওঠে বঙ্গনারী বুটিকটি। এই বুটিকটি মুলত মহিলা কেন্দ্রীক বুটিক বলেই দাবী করেন এই বুটিকের কর্তী মৌমিতা সাহা। তিনি বলেন এই বুটিকটির মিসন এবং ভিসন দুইই হলো সারা বাংলার শিল্পকে তুলে ধরা। এছাড়াও তিনি বঙ্গনারী বুটিক-টিকে নারীদের পরিচয় গঠন করার মাধ্যম হিসেবে তৈরী করেন। সম্ভ্রান্ত ও সচ্ছল ডাক্তার পরিবারের মেয়ে হ‌ওয়া সত্ত্বেও সারা জীবন নিজের মা-কে গৃহবধূ হয়ে অপরের উপর নির্ভর করে জীবন কাটাতে দেখে তাঁর উপলব্ধি হয় যে প্রত্যেকটি নারীর আর্থিক দিক থেকে সমস্যা না থাকলেও তবুও স্বরোজগেরে হয়ে নিজের পায়ে দাঁড়ানো উচিত।দিল্লীতে একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি দিয়ে মৌমিতা দেবীর কর্মজীবন শুরু হয়। শুধু চাকরিতেই মৌমিতা দেবী থেমে থাকেন নি। দিনের বেলায় অফিস আর রাতে বাড়ি ফিরে তিনি নিজে হাতে জেল ক্যান্ডল বানাতেন, এবং সেগুলো নিয়মিত বিক্রীও তিনি করতেন। এই কাজ করতে করতে তিনি ভাবেন, তিনি যদি একটি গোটা দিনকে কাজে লাগিয়ে নিজে কিছু তৈরী করতে পারেন, তাহলে প্রতিটি মহিলাই তাঁর মতো সময়কে কাজে লাগিয়ে নিজেরা কিছু একটা করে নিজেদেরকে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করতে পারবে। সমস্ত মহিলাদের উদ্দেশ্যে তিনি তৈরী করলেন -‘বঙ্গনারী’। এখানে সমস্ত মহিলারা তাঁদের নিজেদের হাতে তৈরী করা জিনিস স্বসন্মানে বেঁচতে পারেন। মৌমিতা দেবী জানান তার এই দক্ষিণ কোলকাতার বুটিকে শুধুমাত্র মহিলাদের হাতে তৈরিই নানা ধরনের দ্রব্য পাওয়া যায়। যেমন মহিলা তাঁতী দের হাতে তৈরী বিভিন্ন ধরনের শাড়ি থেকে শুরু করে, হাতে তৈরী গয়না, ব্যাগ, পারফিউম, হাতে তৈরি বিভিন্ন প্রসাধনী সামগ্রী সব‌ই পাওয়া যায়। এছাড়াও ক্রেতারা তাঁদের নিজেদের পছন্দের ডিজাইনি়ং সামগ্রীও খুব অল্প সময়ের এবং নিজেদের বাজেটের মধ্যেই পেয়ে যান। মৌমিতা দেবী জানান এইসব ছাড়াও বঙ্গনারী ওয়েডিং প্রজেক্টেও সমানভাবে অংশগ্রহণ করে। যেমন, কনের হাতে মেহন্দী পড়ানো থেকে শুরু করে কনের মেক‌আপ, কনের নিজের পছন্দের বেনারসী তৈরী ইত্যাদি সব‌ই বঙ্গনারীর সদস্যরাই করে থাকেন। মৌমিতা দেবী জানান, বঙ্গনারী এইবছর তার বেস্ট ট্রেডিশনাল শাড়ি সেলিং-এর জন্য জানুয়ারি মাসের 20 তারিখে বেস্ট অ্যাচির্ভাস আওয়ার্ডে সন্মানিত হয়। ব্যাঙ্গালরে এক বেসরকারী সংস্থার পক্ষ থেকে বলিউড অভিনেত্রী স্বয়ং দিয়া মির্জা বঙ্গনারীকে পুরস্কৃত করেন। মৌমিতা দেবী আশা রাখেন ভবিষ্যতে এধরনের আরো আওয়ার্ডে বঙ্গনারী সন্মানিত হবে। বঙ্গনারী তাঁদের ব্রান্ড অ্যাম্বাসাডর হিসেবে অভিনেত্রী রূমা-কে তাঁদের পাশে পেয়েছেন বলে কর্নধার মৌমিতা দেবী জানান। অভিনেত্রী রূমা বর্তমানে স্টার জলসা চ্যানেলে ‘ইরাবতীর চুপকথা’ নামক ধারাবাহিক-কে অভিনয় করছেন। শুধু তাই নয় ‘বধূবরন’ ধারাবাহিক-‌এও তিনি অভিনয় করেছেন।

গত 6ই ফেব্রুয়ারি বঙ্গনারী তাঁর আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রেস রিলিজ করেন। ওইদিন বঙ্গনারী নক্ষত্র বেষ্টিত ছিল। উপস্থিত ছিলেন অভিনেত্রী মৌবানী সরকার, সায়ন দেব চ্যাটার্জি, কোয়েল পাল মজুমদার, অভিনেত্রী রূমা, দেবপ্রিয়া দেব মুখার্জী, অয়নজীত সেন, অপ্সরা গুহ ঠাকুরতা, সোসাল ইনফ্লুয়েন্সার পারমিতা ঘোষ আর‌ও প্রমুখ। মৌমিতা দেবী জানান বঙ্গনারীর সদস্য সংখ্যা ক্রমশ উর্দ্ধমুখী। এখানে সবধরনের বয়সের মহিলারা কাজ করেন। তাঁর একার পক্ষে বঙ্গনারী কোনোদিন‌ই তৈরী হ‌ওয়া সম্ভব ছিলনা। তিনি জানান বাঙলার নারীরা একত্র হয়েই তৈরী হয়েছে বঙ্গনারী। তিনি নিজেও খুব খুশি বাঙলার মহিলাদের স্বনির্ভর করতে পেরে তার এই বঙ্গনারীর মাধ্যমে। তিনি মনে করেন বাঙলার প্রতিটি মহিলার স্বনির্ভর হ‌…